1. [email protected] : admi :
  2. [email protected] : admin admin : admin admin
  3. [email protected] : atayur :
  4. [email protected] : Toufiq Hassan : Toufiq Hassan
  5. [email protected] : News Reporter :
হাত-পা নেই, উপুড় হয়েই নামাজ ও কোরআন পড়ে ছেলেটি
বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ০১:৪১ অপরাহ্ন

হাত-পা নেই, উপুড় হয়েই নামাজ ও কোরআন পড়ে ছেলেটি

Desk Report
  • Update Time : সোমবার, ১৫ জুন, ২০২০
  • ২১৫ Time View

৫ বছরের এক কিশোর। হাত-পা নেই তার। গড়িয়ে গড়িয়ে চলাফেরা করে সে। আর এভাবেই উপুর হয়ে শুয়ে নামাজ ও কোরআন পড়ে ছেলেটি। হাজারো বাঁধা বিপত্তির সম্মুখীন হয়েও কোরআন শিক্ষা নিতে ভুলেনি সে। তার নাম টিও সাতরিও। পরিবারের স'ঙ্গে সে বসবাস করে।

জন্মগতভাবেই টিও হাত-পা বিহীন। তার মতে, হাত-পা থাকলে আমি বাবা মাকে সাহায্য করতে পারতাম। কোরআন শিক্ষার জন্য নিজেই স্কুলে যেতে পারতাম। আমা'র শিক্ষকদেরকে বাড়ি বয়ে এসে নিয়ে যেতে 'হতো না। ছোট্ট এই কিশোরের স্বপ্ন ছিল পু'লিশ অফিসার । টিও বলেন, আল্লাহর ইচ্ছা থাকলে আমি অবশ্যই তা 'হতে পারতাম। তবে শারীরিক প্রতিবন্ধকতার কারণে তা আর সম্ভব নয়। তাই সেই স্বপ্ন আর দেখি না। কিছু কাজ আছে যেগু'লো আমি করতে পারিনা।

যেমন- একা খেতে পারিনা, গোসল এমনকি কাপড় পরতেও পারিনা। তবে আমি মুখ দিয়ে লিখতে পারি। লেখাপড়া এমনকি ভিডিও গেম খেলতেও পছন্দ করি আমি। টিও’র মা মিমি বলেন, তাকে খাওয়ানো ও দেখভালের সব দায়িত্বই আমি পালন করি। আর গোসল ও কাপড় পরায় তার বাবা। ভিডিও গেইমের প্রতি তার আকর্ষণ অনেক। এছাড়াও তার মেধার প্রশংসা স্বয়ং স্কুলের প্রিন্সিপাল পর্যন্ত করেন। গণিতে বেশ দক্ষ সে। টিওকে নিয়ে আমি সত্যিই গর্বিত।

আমা'র মোট তিনটি সন্তান। টিওর বড় ভাই বোনেরা স্বাভাবিক ও সুস্থ। তবে সে শারীরিকভাবে প্রতিব'ন্ধী হিসেবে জন্ম নেয়। প্রথমে তার ভবি'ষ্যৎ নিয়ে ভেবে চিন্তিত হয়ে পড়েছিলাম। বর্তমানে সত্যিই আমি টিওর জন্য অনেক গর্বিত। সে আমা'দের জন্য সৌভাগ্যের। মুখ দিয়েও সুন্দর করে লিখতে পারে আমা'র ছেলে। তার গু'ণের শেষ নেই। আমর'া তাকে স্বাভাবিক মানুষই ভাবি।

আমা'র জীবন অনেক কঠিন টিও অনেকটা গম্ভীর সুরে বলছিলেন। মাঝে মাঝে 'হতাশ হয়ে পড়ি। তবে আমা'র স্কুলের প্রিয় বন্ধু ও সহপাঠি টেন্ডিকে দেখে আমি নতুনভাবে বাঁচছি। সেও এক প্রতিকূল অবস্থার মধ্য দিয়ে জীবন যাপন করছে। সে সম্পূর্ণ স্বাভাবিক মানুষ হয়েও অসম্পূর্ণ। কারণ সে কানে শোনে না। অথচ আমি কথাও বলতে পারি আবার কানেও শুনি। তাই টেন্ডিকে দেখলে নিজের কষ্ট অনেকটাই লাঘব হয়।

টেন্ডি কানে না শুনলেও সবকিছুই শিখতে ও জানতে চায়। আমর'া দু’জনই একে অ'পরকে সাহায্য করি। সে হয়ে উঠেছে আমা'র হাত আর আমি হলাম তার কান। এতো দিনে বুঝেছি আমাকে লড়তে হবে। আশা হারালে চলবে না। সবাইকে বলছি, আল্লাহর কাছে সাহায্য চান। হাল ছাড়বেন না, 'হতাশ হবে না। শারীরিকভাবে আমি অক্ষম হলেও আমি নিজেকে সেভাবে ভাবি না। কারণ আমি আমা'র জীবন, প্রার্থনা ও নিরন্তর লড়াইয়ের মাধ্যমে কিছু একটা করতে চাই। সবাই আমা'র জন্য দোয়া করবেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
News Bulletin © All rights reserved 2021
Develper By ITSadik.Xyz