1. [email protected] : admi :
  2. [email protected] : admin admin : admin admin
  3. [email protected] : atayur :
  4. [email protected] : Author :
  5. [email protected] : Toufiq Hassan : Toufiq Hassan
  6. [email protected] : News Reporter :
বিয়ের ২০ বছর পর ২ মেয়েসহ বাড়ি থেকে বি’তাড়িত গৃ’হব’ধূ
রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১২:৩৩ অপরাহ্ন

বিয়ের ২০ বছর পর ২ মেয়েসহ বাড়ি থেকে বি’তাড়িত গৃ’হব’ধূ

Desk Report
  • Update Time : বুধবার, ২৪ জুন, ২০২০
  • ১২০ Time View

রাজবাড়ীতে বিয়ের ২০ বছর পর দুই সন্তানের জননী লতা আক্তারকে (৩৯) শা’রী’রিক নি’র্যা’তন করে বাড়ি থেকে বের করে দেয়ার অ'ভিযোগ উঠেছে স্বামী, সতীন এবং সতীনের ভাই ও মায়ের বি’রু'দ্ধে।

এ ঘটনায় মা’রধ’র ও যৌ'’তুকের মা’মলা দায়ের করেছেন ওই গৃহবধূ। তিনি স্বামী ও সতীনের উপযুক্ত বিচার ও ২০ বছরের দাম্পত্য জীবনের পর স্বামীর অতিরিক্ত দাবি

থেকে নিষ্কৃতি এবং স্বামীর সংসারে ফেরার জন্য আইনী সহায়তা পেতে রাজবাড়ী থা’নায় ম'ঙ্গলবার এ মা'মলা দায়ের করেন।

জানা যায়, ম'ঙ্গলবার সকাল ৯টায় লতার স্বামী মালেক মিয়া, সতীন সেলিনা, তার মা নুরজাহান বেগম ও ভাই শামীম সরদার মিলে লতা ও তার বড় মেয়েকে বেদম মা’রপি’ট

করে ঘরে আ’টকিয়ে রেখে লতার বাবা ও ভাইকে ফোনে সংবাদ দেন। পরে তারা গিয়ে এলাকবাসীর সহায়তায় লতা ও তার দুই মেয়েকে উ’'দ্ধার করে রাজবাড়ী সদর

হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা করান। পরে হাসপাতাল থেকে লতা তার দুই মেয়েসহ সদর উপজে'লার মিজানপুর ইউনিয়নের মর'্জ্জোৎকোল গ্রামে বাবার বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন।

লতা আক্তার ও তার দশম শ্রেণীতে পড়ুয়া মেয়ে যৌ'’তুকলোভী মালেক ও তার পরিবারের উপযুক্ত শা’স্তি দাবি করেছেন।

থানায় লিখিত অ'ভিযোগে লতা আক্তার জানান, ২০০০ সালের ১০ জুলাই রাজবাড়ী সদর উপজে'লার রামকান্তপুর ইউনিয়নের মাটিপাড়া গ্রামের হোসেন আলী মিয়ার ছেলে মো: মালেক মিয়ার সাথে তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর লতার বাবা আব্দুর র'শিদ সেখ

মেয়েজামাই মালেক মিয়াকে রাজবাড়ী স্বাস্থ্য বিভাগে চাকরি পাইয়ে দেন। বর্তমানে মালেক মিয়া ফরিদপুর আলফাডা'ঙ্গা উপজে'লা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে কর্মর'ত আছেন।

মালেক ও লতার বিবাহিত জীবনে দুটি কন্যাসন্তান রয়েছে। তাদের বড় মেয়ে স্থানীয় একটি হাইস্কুলের দশম শ্রেণীর ছাত্রী।

এরই মধ্যে যৌ'তুকলোভী মালেক মিয়া গত বছরের ২৫ জুলাই প্রথম স্ত্রী লতার বিনা অনুমতিতে তাকে না জানিয়ে মাটিপাড়ার পার্শ্ববর্তী বারলাহুরীয়া গ্রামের হাতেম সরদারের মেয়ে দুই সন্তানের জননী এক রিকশাচালকের স্ত্রী সেলিনাকে (৩৪) দ্বিতীয় বিয়ে করেন।

তখন লতা ও এলাকাবাসী দ্বিতীয় স্ত্রীকে তালাক দিতে চাপ দিলে মালেক কৌশলে সেলিনার কাবিন বাবদ পাঁচ লাখ টাকা লতাকে তার বাবার বাড়ি থেকে এনে দিতে লতাকে দুই সন্তানসহ তাড়িয়ে দেয়। তখন লতা বাদি হয়ে রাজবাড়ীর বিজ্ঞ আমলী আ'দালতে

সিআর-২০৬/২০ এবং মুসলিম পারিবারিক আইন আদেশের ৬[৫] ধা'রায় রাজবাড়ীর বিজ্ঞ আমলী আ'দালতে সিআর-২০৭/২০ মা’মলা দায়ের করেন। ওই মা’মলা দুটি বর্তমান বিচারাধীন।

ওই সময় তিন মাস বাবার বাড়ি থাকার পর গত ২০ মে তারিখে মালেক লতার বাবা ও এলাকাবাসীর কাছে মুচলেকা দিয়ে লতাকে তার মেয়েদেরসহ আবার বাড়ি ফিরিয়ে নেন।

এরপর মালেক যৌ'তুকের টাকার দাবি ছেড়ে লতার দায়ের করা দুটি মা’ম’লা তুলে নিতে চাপ প্রয়োগ করেন। এতে লতা রাজি না হয়ে আগে তার দ্বিতীয় স্ত্রী সেলিনা তালাক দিতে বলায় মালেক লতা ও তার মেয়েদের ওপর নি’র্যা’তনের মাত্রা বাড়িয়ে দেন। বড় মেয়ের

পড়ার খরচ ও তাদের খাবারও ঠিকমতো না দিয়ে প্রায়প্রতিদিনই মালেক ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী সেলিনা এবং তার মা ও ভাই প্রায়ই লতাকে মা’রধর’সহ নানাভাবে নি’র্যা’তন করেন। তবুও মেয়েদের ভবি'ষ্যতের কথা ভেবে লতা শত নি’র্যা’তন ও কষ্ট মুখবুজে সহ্য করে

স্বামী সংসারে থাকতে চাইছিলেন। কিন্তু এরই ধা'রাবাহিকতায় ম'ঙ্গলবার সকালে লতা ও তার মেয়েদের কোনো খাবার না দিয়ে ঘরে আ’টকিয়ে মালেক ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী এবং তার মা ও ভাই নি'র্যাতন করে মা’রা’ত্মক জ'খম করেন।

এ ব্যাপারে মালেক মিয়া বলেন, ‘সংসারে কিছু সমস্যা হয়েই থাকে। এর সমাধান হয়ে যাব'ে।’

রাজবাড়ী সদর থা’নার ভারপ্রা'প্ত কর্মকর্তা (ওসি) স্বপন কুমা'র জানান, লতা আক্তারের একটি অ'ভিযোগ পেয়েছি। শিগগিরই ত’দন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মিজানপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো: আতিয়ার রহমান জানান, ঘটনাটি তিনি জানেন। লতা ও তার বাবা নিরীহ মানুষ, বলেন তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
News Bulletin © All rights reserved 2021
Develper By ITSadik.Xyz