1. admin1@newsbulletin.info : admi :
  2. mohamamdin95585@gmail.com : atayur :
  3. sawontheboss4@gmail.com : Toufiq Hassan : Toufiq Hassan
  4. zilanie01@gmail.com : News Reporter :
পাঁচটি কারণে কাবার দিকে ফিরে নামাজ পড়তে হয়
বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৫২ অপরাহ্ন

পাঁচটি কারণে কাবার দিকে ফিরে নামাজ পড়তে হয়

Desk Report
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ২৬ Time View

আদিকাল থেকেই মানুষের মাঝে এ প’'দ্ধতি চলে আসছে যে যখন কোনো রাজা-বাদশাহর প্রশংসা ও গু'’ণাবলি বর্ণনা করা হয়,

তখন সর্বপ্রথম তাঁর সামনে দ’ণ্ডায়মান ‘'হতে হয়, তারপর গু'’ণকীর্তন ও প্রশংসা বর্ণনা শুরু করা হয়। নামাজের মধ্যে এ বি’ষয়টিকেই ইবাদত সাব্যস্ত করা হয়েছে। আর ইবাদতের প্রাণ হলো স্থিতিশীলতা ও একদিকে নিবি”ষ্ট হওয়া। যতক্ষণ পর্যন্ত ইবাদতকারী নিজ ইবাদতে একটি নির্দি’ষ্ট দিকে নিজেকে বাধ্য না করবে, ততক্ষণ পর্যন্ত এ নিবি”ষ্টতা ও স্থিতিশীলতা অর্জিত হবে না। এ জন্য নামাজের ক্ষেত্রে একটি বিশেষ দিক নির্দি’ষ্ট করা হয়েছে।

২. বাহ্যিকের স'ঙ্গে অভ্যন্তরের এমন নিবিড় সম্পর্ক আছে যে বাহ্যিককে কোনো এক দিকে অবলম্বন করা হলে অভ্যন্তরকে সেদিক অবলম্বন করার শক্তি প্রদান করে। এ জন্য নামাজে কাবার দিকে মুখ ফেরানো আবশ্যক। ৩. সৃ’ষ্ট জীবের মধ্যে সবার জন্য একটি নির্দি’ষ্ট কিবলা হওয়া আবশ্যক, যেন তাদের বাহ্যিক ঐক্য দ্বারা অভ্যন্তরীণ ঐক্য শক্তিশালী হয়। আর যখন ইবাদতের নূর ও বরকত অর্জনে বাহ্যিক ও অভ্যন্তর উভয় সমন্বয় হয়ে যাব'’ে,

তখন অন্তর জ্যোতির্ময় হওয়ার ক্ষেত্রে বিরাট প্রভাব সৃ’ষ্টি হবে। যেমন—এক স্থানে যদি অনেক বাতি প্রজ্বা'’লন করা হয়, তখন সে স্থান অনেক আলোকিত হয়। এ জন্যই জুমা ও জামাতের বিধান প্রবর্তন করা হয়েছে।পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের জামাতে এক মহল্লার লোকেরা সমবেত হয় আর জুমা’র জামাতে এক শহরের লোকেরা সমবেত হয়; আবার হজের সময় বিশ্বের সব মুসলমান সমবেত হয়।

সমবেত হওয়া ইবাদতের নূরকে বৃ’'দ্ধি করার কারণ হয়। যেহেতু বিশ্বের সব মুসলমান একই স্থানে সব সময় একত্র হওয়া অ’সম্ভব, এ জন্য সে স্থানের দিকটাকে ওই স্থানের পর্যায়ে গণ্য করে নামাজে সেদিকে ফেরার বিধান প্রদান করা হয়েছে। ৪. এক দল মানুষ শিরকে লি’'প্ত হয়। তারা জড় ও জীবের পূজা করে। এটা তাদের উপাসনার একটি ধরন। মহান আল্লাহ তাঁর ইবাদতের প’'দ্ধতিকে বিশু’'দ্ধ করতে চেয়েছেন, যাতে ইবাদত শিরকমুক্ত হয়।

এদিকে প্রত্যেক মুসলমানের বিশ্বা’স ছিল যে মক্কায় বাইতুল্লাহকে একত্ববাদের মহান এক প্রচারক হজরত ইবরাহিম (আ.) নির্মাণ করেছেন এবং শেষ জামানায় তাঁরই বংশধরের এক মহান ব্যক্তি হজরত মুহা'ম্ম’দ (সা.) পূর্ণ শরিয়ত নিয়ে আ’ত্মপ্রকাশ করবেন। এবং তিনি তাওহিদ তথা একত্ববাদের আদর্শকে পুনর্জীবিত ও পূর্ণ করবেন। তাই মহান আল্লাহর একত্ববাদের শিক্ষাকে পূর্ণ করার লক্ষ্যে কাবার দিকে ফিরে নামাজ পড়তে হয়।

৫. কোনো ব্যক্তি যদি কোনো জায়গায় যায়, তখন সে জায়গায় যাওয়ার জন্য যে আদব-শি’ষ্টাচার রয়েছে, তার অনুসরণ করা হয়। পাশাপাশি এই শি’ষ্টাচার ওই ব্যক্তির প্রাপ্য হিসেবে ধ’রা হয়। যেমন—কোনো সিংহাসনে উপবি”ষ্ট ব্যক্তিকে যদি ঝুঁকে সালাম করে তখন এর দ্বারা উদ্দেশ্য হলো সিংহাসনে উপবি”ষ্ট সত্তা, সিংহাসন নিজে নয়। সুতরাং ‘বাইতুল্লাহ’ শব্দ দ্বারাও এদিকে ই'ঙ্গিত করা হয়েছে যে ঘর উদ্দেশ্য নয়, বরং ঘরের মালিক

উদ্দেশ্য। অর্থাৎ কাবার দিকে ফিরে নামাজ পড়া হলেও মূলত নামাজ কাবার মালিকের জন্য। এসব কারণে মুসলমানরা কাবার দিকে ফিরে নামাজ আ’দায় করে। [আল্লামা আশরাফ আলী থানভি (রহ.) রচিত ‘আহকামে ইসলাম আকল কি নজর মে’ থেকে সংক্ষি’'প্ত ভাষান্তর

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
News Bulletin © All rights reserved 2021
Develper By ITSadik.Xyz