1. admin1@newsbulletin.info : admi :
  2. mohamamdin95585@gmail.com : atayur :
  3. sawontheboss4@gmail.com : Toufiq Hassan : Toufiq Hassan
  4. zilanie01@gmail.com : News Reporter :
জে'নে রা'খু'ন প্র'স্রা'বে ই'নফে'ক'শনে'র কয়েকটি প্রা'থমি'ক ল'ক্ষ'ণ এবং ঘ'রো'য়া প্র'তিকা'র
বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:৪২ অপরাহ্ন

জে’নে রা’খু’ন প্র’স্রা’বে ই’নফে’ক’শনে’র কয়েকটি প্রা’থমি’ক ল’ক্ষ’ণ এবং ঘ’রো’য়া প্র’তিকা’র

Desk Report
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ২৪ Time View

ইউরিন বা প্রস্রাবে ইনফেকশনের সমস্যায় নারী-পুরুষ ও ছোট-বড় সবাই ভোগেন। আবার অনেকেই প্রাথমিক অবস্থায় টের পান না এই সংক্রমণের বি'ষয়ে। ফলে এর প্রভাব মাত্রারিক্ত পড়ে শরীরে।

দীর্ঘদিনের প্রস্রাব সংক্রমণে বাড়তে পারে লিভার ও কিডনির নানা রোগ। সারাদিন যত পানি পান করা হয় সবই লিভার ও কিডনি ছেঁকে মূত্রনালি দিয়ে বের হয়ে যায়। সবার শরীরেই দু’টি কিডনি, দু’টি ইউরেটার, একটি ইউরিনারি ব্লাডার (মূত্রথলি) ও ইউরেথ্রা (মূত্রনালি) নিয়ে রেচনতন্ত্র গঠিত। এই রেচনন্ত্রের যে কোনো অংশে যদি সংক্রমণ ঘটে তাহলে তাকে ‘ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশন’ বলা হয়। কিডনি, মূত্রনালি, মূত্রথলি বা

একাধিক অংশে একইস'ঙ্গে এ ধরণের সংক্রমণ 'হতে পারে। এই সংক্রমণকেই সং'ক্ষেপে ‘ইউরিন ইনফেকশন’ বলা হয়। সাধারণত সবারই এই সমস্যাটি 'হতে পারে। তবে নারীদের মধ্যে ইউরিন ইনফেকশনে আ'ক্রা'ন্ত হওয়ার প্রবণতা বেশি। জেনে নিন যেসব লক্ষণ দেখে বুঝবেন আপনি ইউরিন ইনফেকশনে আ'ক্রা'ন্ত কি না- >> প্রস্রাব গাঢ় হলুদ বা লালচে হওয়া >> প্রস্রাবে দুর্গন্ধ >> বারবার প্রস্রাবের বেগ অনুভব করা >> ঠিকমতো প্রস্রাব না হওয়া

>> প্রস্রাব করার সময় জ্বা'লাপোড়া বা ব্যথা অনুভব করা >> তলপেটে ও পিঠের নিচে প্রচণ্ড ব্যথা হওয়া >> শরীরে জ্বর জ্বর ভাব >> কাঁপুনি দিয়ে জ্বর আসা ও >> বমি ভাব ও বমি হওয়া ইত্যাদি। ইউরিন ইনফেকশনের ঘরোয়া প্রতিকার ইউরিন ইনফেকশনের লক্ষণ দেখলে দ্রুত চিকিৎসকের শরনাপন্ন হন। চিকিৎসকের পরামর'্শ অনুযায়ী ওষুধ সেবন করুন। পাশাপাশি কয়েকটি ঘরোয়া প্রতিকারও অনুসরণ করতে পারেন। জেনে নিন করণীয়-

দিনে অবশ্যই ২-৩ লিটার পানি খান। প্রসাবে হলুদ ভাব দেখলেই প্রচুর পরিমাণে পানি খেতে হবে। সাধারণত প্রতি ৪-৫ ঘণ্টা পরপর প্রস্রাব হওয়া উচিত। এরও বেশি সময় ধরে প্রস্রাব না হলে বেশি করে পানি খান।>> পর্যা'প্ত ভিটামিন সি খিতে হবে। চিকিত্সকরা এক্ষেত্রে রোগীদেরকে দৈনিক ৫০০০ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি খাওয়ার পরামর'্শ দেন। ভিটামিন সি মূত্রথলী ভালো রাখে ও প্রস্রাবের সময় জ্বা'লা ভাব কমায়। এছাড়াও

ভিটামিন সি ক্ষ'তিকর ব্যাকটেরিয়া ধ্বং'স করে।>> ইউরিন ইনফেকশন হলে বেশি পরিমাণে আনারস খাওয়া উচিত। এতে আছে ব্রোমেলাইন নামক একটি উপকারী অ্যানজাইম। গবেষণায় দেখা গেছে, ইউরিন ইনফেকশনে আ'ক্রা'ন্ত রোগীদেরকে সাধারণত ব্রোমেলাইন সমৃ'দ্ধ অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া হয়। তাই ইউরিন ইনফেকশন হলে প্রতিদিন এক কাপ আনারসের রস খান।

ইউরিন ইনফেকশনের কয়েকদিনের মধ্যেই সংক্রমণ কিডনিতে ছড়িয়ে পড়ে। তাই যত দ্রুত সম্ভব চিকিৎসা করানো জরুরি। >> বেকিং সোডা দ্রুত ইউরিন ইনফেকশন সারিয়ে তুলতে সাহায্য করে। এজন্য আধা চামচ বেকিং সোডা এক গ্লাস পানিতে ভালো করে মিশিয়ে দিনে একবার খেলেই প্রস্রাবের জ্বা'লা ও ব্যথা কমে যাব'ে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
News Bulletin © All rights reserved 2021
Develper By ITSadik.Xyz