1. [email protected] : admi :
  2. [email protected] : admin admin : admin admin
  3. [email protected] : atayur :
  4. [email protected] : Toufiq Hassan : Toufiq Hassan
  5. [email protected] : News Reporter :
করোনায় মারা গেলেন সৌদি প্রিন্স; রাজপরিবারের ১৫০ সদস্য আক্রান্ত
রবিবার, ২৬ জুন ২০২২, ১১:৪১ অপরাহ্ন

করোনায় মারা গেলেন সৌদি প্রিন্স; রাজপরিবারের ১৫০ সদস্য আক্রান্ত

Desk Report
  • Update Time : শনিবার, ২৭ জুন, ২০২০
  • ১৬৯ Time View

করো'নায় মা'রা গেলেন সৌদি প্রিন্স; রাজপরিবারের ১৫০ সদস্য আ'ক্রা'ন্ত
করো'নাভাইরাসে আ'ক্রা'ন্ত হয়ে সৌদি আরবের রাজপরিবারের এক সদস্যার মৃ'ত্যু হয়েছে। মৃ'ত রাজপরিবারের সদস্যার নাম প্রিন্স সৌদ বিন আবদুল্লাহ বিন ফয়সাল বিন আবদুল আজিজ আল সৌদ।

সোমবার মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম মিডিল ইস্ট মনিটর খবরটি প্রকাশ করে। সৌদি আরবের সরকারি প্রেস এজেন্সির (এসপিএ) বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, গত বৃহস্পতিবার করো'নাভাইরাসে আ'ক্রা'ন্ত হয়ে হয়ে তিনি ইন্তেকাল করেন।

তবে বলা হচ্ছে, আবদুল আজিজের মৃ'ত্যুর পর রাজপরিবারের অনেক সদস্যই হাসপাতাল কিংবা নিজ বাসভবনে থেকে করো'নার চিকিৎসা নিচ্ছেন। সৌদি সাংবাদিকের তথ্য মতে, করো'নাভাইরাসের কারণে দেশটির জেদ্দা ও রিয়াদের অবস্থা উদ্বেগজনক।

নিউইয়র্ক টাইমসের তথ্য অনুযায়ী, রিয়াদের গভর্নর ফয়সাল বিন বানদার বিন আবদুল আজিজসহ সৌদি রাজপরিবারের প্রায় দেড়শ সদস্য এখন পর্যন্ত করো'নাভাইরাসে আ'ক্রা'ন্ত হয়েছেন।

ভারতের উপর নজরদারি করছে চীনা হেলিকপ্টার!

ইস্টার্ন লাখাদের চলমান ইস্যুগু'লো নিরসনের প্রয়াসের মধ্যেই চীনা সেনাবাহিনী লাইন অব একচুয়াল কন্ট্রোলের (এলএসি) মধ্যে তার নিজের এলাকায় সামর'িক কার্যক্রম বৃ'দ্ধি করেছে বলে ভারতীয় মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে।

ভারতীয় মিডিয়ার খবরে বলা হয়, এলএসির নিজেদের অংশে চীনা চপার কার্যক্রম গত সাত থেকে আট' দিন ধরে বেশ বেড়েছে। এর কারণ সম্ভবত, এসব হেলিকপ্টারের সাহায্যে এলএসির বিভিন্ন স্থানে মোতায়েন চীনা সৈন্যদের কাছে সহযোগিতা প্রদান করা। সূত্রগু'লো এ তথ্য জানিয়েছে।

সূত্র জানায়, এসব এলাকায় মোতায়েন চীনা চপারের মধ্যে রয়েছে এমআই-১৭এস ও তাদের স্থানীয় মিডিয়াম-লিফট চপার। গত কয়েক মাস ধরে চীনারা ইস্টার্ন গালওয়ান এলাসাসহ লাদাখ সেক্টরের ভারতীয় অবস্থানের আশপাশে তাদের চপারগু'লো ব্যাপক মাত্রায় উড়াচ্ছে।

গালওয়ান এলাকায় চীনা চপারগু'লো এমনকি একবার একটি রাস্তা নির্মাণস্থলের উপর দিয়েও উড়ে যায়। সূত্র জানায়, চীনারা তাদের চপারের মাধ্যমে প্রায়ই আকাশসীমা ল'ঙ্ঘন করছে, এলএসিজুড়ে ভারতীয় অবস্থানগু'লোর কাছে টহল দিয়ে বেড়াচ্ছে।

গত মাসের প্রথম দিকে এলএসির খুব কাছে চীনা সামর'িক চপার দেখতে পেয়ে ভারতীয় বিমান বাহিনী তাদের জ'ঙ্গি বিমান নিয়ে আসে ওই এলাকায় টহল দিতে। মে মাসের প্রথম ও দ্বিতীয় স'প্তাহে ভারতীয় ও চীনা সৈন্যরা যখন মুখোমুখি অবস্থায় ছিল, তখন এই ঘটনা ঘটে।

মমে মাস থেকেই চীনা ও ভারতীয় সেনাবাহিনী মুখোমুখি অবস্থায় রয়েছৈ। চীনা সেনাবাহিনী এই এলাকায় তাদের ভারী আর্টিলারি ও সাজেয়া যান নিয়ে এসেছে। উত্তেজনা প্রশমনে উভয় পক্ষ আলোচনা শুরু করেছে। মেজর জেনারেল পর্যায়ের আলোচনার পর পরবর্তী রাউন্ডে লে. জেনারেল পর্যায়ের আলোচনা হবে উভয় পক্ষের মধ্যে।

এএনআই

চীন-ভারত সীমা'ন্ত আলোচনা আরেকটি দোকলাম অচলাবস্থা প্রতিরোধ করেছে
লিউ জুয়ানজুন

চীন ও ভারতের মধ্যকার চলমান সীমা'ন্ত বিরোধ আরেকটি দোকলাম অচলাবস্থা সৃষ্টি হওয়ার মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি করবে না। শনিবার দুই দেশের সামর'িক কমান্ডারদের বৈঠকের পরিস্থিতি শান্তিপূর্ণভাবে মীমাংসার ব্যাপারে ইতিবাচক মতৈক্য হওয়ায় এই ধারণা হয়েছে। চীনা বিশেষজ্ঞরা সোমবার এ মন্তব্য জানিয়েছেন।

অবশ্য পরিস্থিতির জটিলতার কারণে সামর'িক অচলাবস্থা আরো কিছু সময় অব্যা'হত থাকতে পারে বলে তারা উল্লেখ করেছেন। শনিবার লেভিত্তি ভারতীয় বাহিনীর কমান্ডার ও চীনা কমান্ডার বৈঠক করেন। এটি হয় আন্তরিকতা ও ইতিবাচক পরিবেশে।

ভারতীয় পররাষ্ট্র দফতর রোববার এক বিবৃতিতে এ মন্তব্য করে। উভয় পক্ষ দুই দেশের মধ্যে হওয়া বিভিন্ন চুক্তির আলোকে সীমা'ন্ত এলাকার পরিস্থিতি শান্তিপূর্ণভাবে মীমাংসায় রাজি হয়। তারা একমত হয় যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের সার্বিক উন্নয়নের জন্য ভারত-চীন সীমা'ন্ত অঞ্চলে শান্তি ও স্থিতিবস্থা বজায় রাখা প্রয়োজন।

সাম্প্রতিক স'প্তাহগু'লোতে ভারত ও চীন ভারত-চীন সীমা'ন্তজুড়ে পরিস্থিতি সামাল দিতে কূটনৈতিক ও সামর'িক চ্যানেল প্রতিষ্ঠা করে।
গালওয়ান উপত্যকায় চীনা ভূখণ্ডে ভারত অবৈ'ধভাবে প্রতিরক্ষা স্থাপনা নির্মাণ করার প্রেক্ষাপটে সম্প্রতি চীন-ভারত সীমা'ন্তে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। এটি প্রশমনের জন্যই দুই দেশের সিনিয়র সামর'িক অফিসারদের মধ্যে আলোচনা হয়।

তাইহি ইনস্টিটিউটের সিনিয়র ফেলো ও বেইজিংয়ের সিহুয়া ইউনিভার্সিটির ন্যাশনাল স্ট্রাটেজি ইনস্টিটিউটের গবেষণা বিভাগের পরিচালক কিয়ান ফেঙ সোমবার গ্লোবাল টাইমসকে বলেন, দুই দেশের সামর'িক বাহিনীর মধ্যে উচ্চ পর্যায়ের সাম্প্রতিক আলোচনায় ই'ঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে যে উভয় পক্ষ পরিস্থিতির দিকে খুবই নজর রাখছে, এবং তারা এই উত্তেজনা বাড়তে দিতে রাজি নয়।

তিনি বলেন, এতে বোঝা যায়, চীন ও ভারত সীমা'ন্ত ইস্যু শান্তিপূর্ণভাবে সমাধানে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। তিনি বলেন, এই পরিস্থিতিতে মা'র্কিন অযাচিত হস্ত'ক্ষেপের প্রস্তাব উভয় দেশ প্রত্যাখ্যান করার মধ্যে তাদের কৌশলগত বিজ্ঞতার পরিচয় পাওয়া যাচ্ছে।

মিডিয়ার খবরে বলা হয়, উভয় দেশ সীমা'ন্ত এলাকায় শক্তি বাড়িয়েছে। এতে করে আরেকটি অচলাবস্থার আশঙ্কা সৃষ্টি হয়। অনেকে বলতে থাকেন, দ্বিতীয় দোকলাম সঙ্কট সৃষ্টি হচ্ছে।
কিন্তু তা হয়নি। ২০১৭ সালের দোকলাম সঙ্কট থেকে উভয় দেশ বিপুল অ'ভিজ্ঞতা অর্জন করেছ।

এরপর থেকে সামর'িক, কূটনৈতিক ও স্থানীয় ইস্যুসহ দ্বিপক্ষীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে সঙ্কট প্রশমনে। কিন্তু তা সত্ত্বেও চলমান অচলাবস্থা খুব শিগগিরই অবসান হচ্ছে না। তিনি বলেন, তবে যে কারণে এই ঘটনা ঘটেছে, তথা ভারতের চীনা ভূখণ্ডে অবকাঠামো নির্মাণকাজ অবশ্যই বন্ধ করতে হবে। তা না হলে চীন পরিস্থিতি মেনে নেবে না। সুত্র: গ্লোবাল টাইমস

ভারতের সীমানা দখল করা ছেলেখেলা নয়, ভয়'ঙ্কর পরিণতি হবে: অমিত শাহ

লাদাখ সীমা'ন্তে চীন-ভারত উত্তেজনা প্রশমনে দুই দেশের শীর্ষ সেনা কর্মকর্তারা একমত হয়েছেন বলে রবিবার জানিয়েছিল ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এর মধ্যেই সীমা'ন্তে দখলদারি নিয়ে বেইজিংকে কঠোর হুঁশিয়ারি দিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

সোমবার এক ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উড়িশ্যা জন সংবাদ র‍্যালিতে ভাষণ দিচ্ছিলেন শাহ। সেখানে তিনি বলেন, ভারতের সীমানা দখল করা কোনো ছেলেখেলা নয়।

সার্জিক্যাল স্ট্রাইক, বিমান হা'মলার কথা মনে করুন। iজ'ঙ্গি হানা আমা'দের সময়েও হয়েছে। কিন্তু নরেন্দ্র মোদী সময় নষ্ট করেননি। সার্জিক্যাল স্ট্রাইক করে, বিমান হা'মলা চালিয়ে পাকিস্তানকে শাস্তি দেওয়া হয়েছে। গোটা দুনিয়া বুঝতে পেরেছে ভারতীয় সীমানায় ঢুকে পড়া কোনো ছেলেখেলা নয়। এর পরিণতি ভয়'ঙ্কর হবে।

সম্প্রতি তিনি বিহারের জন্য এরকম একটি সভা করেছেন। আজ ছিল ওড়িশার জন্য। গত কয়েক বছরে কেন্দ্রের সাফল্যের খতিয়ান তুলে ধরেন শাহ। তিনি বলেন, দুই তৃতীয়াংশ সংখ্যা গরিষ্ঠাতা নিয়ে অনেকে ক্ষমতায় এসেছে।

এতদিন কারো ক্ষমতা ছিল না ৩৭০ ধা'রা ৩৫এ ধা'রা বিলোপ করে। মোদী সরকার তা পেরেছে।

প্রস'ঙ্গত, লাদাখে এক মাসেরও বেশী সময় ধরে মুখোমুখি রয়েছে ভারত ও চীনের সেনাবাহিনী। শত শত সৈন্য নিয়ে অ'পেক্ষা করছে দুই দেশ। চীন এক চুলও সরতে রাজি নয়।

একাধিক বৈঠকেও কোনো কাজ না হওয়ায় শেষ পর্যন্ত লেফট্যানন্টে জেনারেল স্তরের বৈঠক হয় শনিবার। আর তাতে দুই দেশই সীমা'ন্ত সমস্যা শান্তিপূর্ণভাবে সমাধান করতে রাজি হয়েছে বলে জানা গেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
News Bulletin © All rights reserved 2021
Develper By ITSadik.Xyz