1. [email protected] : admi :
  2. [email protected] : admin admin : admin admin
  3. [email protected] : atayur :
  4. [email protected] : Toufiq Hassan : Toufiq Hassan
  5. [email protected] : News Reporter :
প'রকী'য়া ঠে'কাতে স্ত্রী অদল-বদল করে উ'ত্তর ভা'র'তে'র যে উ'পজা'তি
বৃহস্পতিবার, ০৪ অগাস্ট ২০২২, ০১:৪০ পূর্বাহ্ন

প’রকী’য়া ঠে’কাতে স্ত্রী অদল-বদল করে উ’ত্তর ভা’র’তে’র যে উ’পজা’তি

Desk Report
  • Update Time : রবিবার, ২৮ নভেম্বর, ২০২১
  • ১৬১ Time View

প'রকীয়া বর্তমানে বাংলাদেশের আইনে একটি দ.ণ্ড.নীয় অ'প.রাধ। তবে ভারতে এমনও একটি আইন আছে, যেখানে স্বামী বা স্ত্রীর প.রকীয়া ঠেকাতে আইন দিয়ে নয়, বরং স্ত্রীকে অদলবদল করার রীতি আছে।

অন্যদিকে, বিশ্বের আরো এমন উপজাতি আছে, যারা বাড়িতে কোনো মেহমান এলে তাদের আতিথীয়তার অংশ হিসেবে নিজের স্ত্রীকে তার সাথে রাত কা.টানোর সুযোগ করে দেয়। এই ধরনের উপজাতিদের মধ্যে আছে দ্রোকপা। তারা হিমালয়ের আর্য হিসেবেও পরিচিত। সংখ্যায় তিন হাজার ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠিরা উত্তর ভারতে সিন্ধু নদীর তীরে বসবাস করেন। এরা আলেকজান্ডার দ্য গ্রে'টের সৈন্যদের বংশধর। এই উপজাতিদের

সংস্কৃতি বেশ ভিন্ন। তারা সাধারণ সমাজের কোনো নিয়মই অনুসরণ করে না। তারা একে অ'পরের প্রতি খুবই বন্ধুসুলভ ও স্নেহশীল। স্ত্রী অ.দলবদলের রীতি তাদের কাছে বেশ সাধারণ।অন্যদিকে, নামিবিয়ান ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি হিম্বা উপজাতির মধ্যেও এই ধরনের চল আছে। লাল চামড়ার জাতি হিসেবে পরিচিত এই উপজাতি অবশ্য স্ত্রীকে র.দবদল করে না। ‘ওকুজেপিসা ওমুকাজেন্দু’ নামের এই রীতি অনুযায়ী, একজন ব্যক্তি তার

স্ত্রীকে অতিথির কাছে এক রাতের জন্য থাকার অনুমতি দেন। যদিও একজন নারী অতিথির স'ঙ্গে ঘু'মাতে অস্বীকার করতে পারেন। তবে বেশিরভাগই স্বামীর সি'দ্ধা.ন্ত মেনে পরপুরুষের স'ঙ্গে রাত কা.টান। তাদের ধারণা, এতে সম্পর্ক ভালো থাকে ও হিং.সা দূর হয়। বরফের বসবাসকারী এস্কিমো উপজাতি তাদের ঘরগু'লোর জন্য বিশ্বজুড়ে পরিচিত। এই ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠির সদস্যরাও চাইলে স্ত্রী বদলের মাধ্যমে অন্য পুরুষের স্ত্রীর

স'ঙ্গে যৌ'.ন সম্পর্ক স্থাপন করতে পারেন। আবার তার স্ত্রীও একইভাবে অন্য পুরুষের স'ঙ্গে অবা.ধে যৌ'.ন.মি.লন করতে পারেন।এমনকি এক পুরুষ এস্কিমোর বন্ধু বা ভাইয়েরা তার স্ত্রীর স'ঙ্গে রা.ত্রিযাপন করতে পারেন। এছাড়াও যখন কোনো নারীর স্বামী শহরের বাইরে বা শি.কারে দূরে যান তখন তিনি চাইলেই স্বামীর ভাইয়ের স'ঙ্গে যৌ'.ন.মি.লন করতে পারেন। এমনকি অন্য পুরুষের সন্তান গ'র্ভে ধারণ করাও বৈ.ধ এস্কিমো

সমাজে।এছাড়া, মালাউইতে বাসকারী চেওয়া গোত্রের মধ্যে অদ্ভুত কিছু রীতি আছে। দা'ফনের সময় একটি লা.শকে জল খাবার দেয় তারা। এমনকি তারা স্ত্রী ভাগ করার সংস্কৃতিও পালন করে। তারা বিশ্বা'স করেন, খাবার যেহেতু ভাগ করে খাওয়া যায়, ঠিক তেমনই স্ত্রী.কেও ভাগ করা যায়! এই রীতি অনুযায়ী, প্রতি স'প্তাহেই এক বন্ধুর স্ত্রীকে অন্য বন্ধু এভাবে ভাগ করে নেয়। এরপর তারা রাত কা.টায়।

এই গোত্রের ধারণা, এই রীতি অনুশীলনের ফলে তাদের বন্ধুত্বের সম্পর্ক আরও উন্নত হয়। এমনকি যখন একজন নারী গ.র্ভবতী থাকেন, তখন সে তার স্বামীকে অনুমতি দেন অন্য নারীর স'ঙ্গে যৌ'.ন.মি.লন করার। যতদিন না তিনি সন্তান জন্ম দিচ্ছেন ও শিশুর বয়স তিন মাস না হচ্ছে ততদিন তিনি স্বামীকে অন্য নারীর স'ঙ্গে ভাগ করেন। এভাবেই চলে আসছে যুগের পর যুগ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
News Bulletin © All rights reserved 2021
Develper By ITSadik.Xyz