1. [email protected] : admi :
  2. [email protected] : admin admin : admin admin
  3. [email protected] : atayur :
  4. [email protected] : Toufiq Hassan : Toufiq Hassan
  5. [email protected] : News Reporter :
রো'গী'কে প'ছন্দ হ'লে যৌ'ন নি'র্যা'ত'ন ক'রতে'ন মা'দ'ক নি'রাম'য় কে'ন্দ্রে'র মা'লি'ক
বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৪০ অপরাহ্ন

রো’গী’কে প’ছন্দ হ’লে যৌ’ন নি’র্যা’ত’ন ক’রতে’ন মা’দ’ক নি’রাম’য় কে’ন্দ্রে’র মা’লি’ক

Desk Report
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৬ জানুয়ারী, ২০২২
  • ১৮১ Time View

গাজীপুরে একটি মা'দক নিরাময় কেন্দ্র থেকে মা'দক উ'দ্ধার করা হয়েছে। মা'দকাসক্তদের পুনর্বাসনের জন্য কেন্দ্র খোলা হলেও সেখানে চলতো শারীরিক, মানসিক ও যৌ'ন নি'র্যাতন।

রোগীকে পছন্দ হলে তার ওপর যৌ'ন নি'র্যাতন চালাতেন নিরাময় কেন্দ্রটির মালিক ফিরোজা নাজনীন বাঁধন। ওই কেন্দ্রে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের কাছে থেকে হাতিয়ে নেওয়া 'হতো লাখ লাখ টাকা। কোনো রোগী তাদের অ'ভিভাবকদের কাছে অ'ভিযোগ করলে নি'র্যাতনের মাত্রা আরও বাড়িয়ে দেওয়া 'হতো। র‍্যাব' বলছে, ওই কেন্দ্রটির সব কর্মকর্তা-কর্মচারী ছিলেন মা'দকাসক্ত!

ম'ঙ্গলবার (৪ জানুয়ারি) সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত গাজীপুর জে'লা শহরের ভুরুলিয়া কালাসিকদারের ঘাট এলাকায় ‘ভাওয়াল মা'দকাসক্ত পুনর্বাসন কেন্দ্র’ নামক একটি প্রতিষ্ঠানে র‍্যাব' ও মা'দকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের অ'ভিযানের পর এমন তথ্য বেরিয়ে আসে। এ সময় ওই কেন্দ্র থেকে বেশ কিছু মা'দক উ'দ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় ওই পুনর্বাসন কেন্দ্রের মালিক ফিরোজা নাজনীন বাধনসহ পাঁচজনকে আট'ক করেছে

র‍্যাব'। ওই কেন্দ্র থেকে ৪২০ পিস ইয়াবা উ'দ্ধার করা হয়। কেন্দ্রটি মা'দকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদ'প্তর সিলগালা করে দিয়েছে।র‍্যাব'ের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন এক প্রেস ব্রিফিংয়ে জানান, সুনির্দিষ্ট অ'ভিযোগের ভিত্তিতে গো'পন সূত্রে খবর পেয়ে নগরীর ভাওয়াল মা'দকাসক্ত পুনর্বাসন কেন্দ্র নামক একটি প্রতিষ্ঠানে অ'ভিযান চালানো হয়। যেভাবে নিরাময় কেন্দ্র পরিচালনা, চিকিৎসা দেওয়া ও

রোগীদের সেবা দেওয়ার কথা তা সেখানে দেওয়া 'হতো না। এ কেন্দ্রে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের মানসিক, শারীরিক ও যৌ'ন নি'র্যাতন করা 'হতো বলে কেন্দ্রের মালিক ফিরোজা নাজনীন বাধনের বিরু'দ্ধে অ'ভিযোগ করেছেন রোগীরা। তিনি আরও জানান, এখান থেকে শারীরিক নি'র্যাতনের ফুট প্রিন্ট পাওয়া গেছে। বিশেষ করে রোগীদের ঝুঁলিয়ে পেটানো এবং শারীরিক নি'র্যাতনের প্রমাণ হিসেবে র'শি উ'দ্ধার করা হয়েছে।

বিভিন্ন ধরনের নি'র্যাতনের প্রমাণ পাওয়া গেছে।একটি নিরাময় কেন্দ্র পরিচালনার জন্য যে নিয়ম-কানুন আছে তার অধিকাংশই এখানে মানা 'হতো না। এ কেন্দ্রে নিম্নমানের খাবার সরবরাহসহ ভর্তিকৃত রোগীদের জন্য কোনো চিকিৎসক ছিলনা। এ কেন্দ্রে যে পরিমাণ রোগী থাকার কথা তার চেয়ে বেশি রোগী ছিল। আট'ক ফিরোজা নাজনিন বাঁধনকে জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে তিনি বলেন, বাঁধন ২০০৯ সালে ভাওয়াল মা'দকাসক্তি

পুনর্বাসন কেন্দ্রটি অনুমোদনহীনভাবে প্রতিষ্ঠা করেন। ২০১৩-১৪ সালে সাময়িক অনুমোদন পায়। কর্মী সংখ্যা ৪ জন এবং রোগীর সংখ্যা বর্তমানে ২৮ জন। তিনি যে ভবনটিতে থাকতেন সেটির ভাড়া বাবদ প্রতিমাসে ৪০ হাজার টাকা বাড়ির মালিককে পরিশোধ করতেন। ভিকটিমর'া র‌্যাব'কে জানিয়েছে, বাঁধন প্রতি রোগীর কাছ থেকে মাসিক চার্জ হিসাবে ১০-৩০ হাজার টাকা করে আ'দায় করতেন। নিরাময় কেন্দ্রে দুইজন চিকিৎসক

থাকার কথা বললেও কোনো চিকিৎসককে অ'ভিযানকালে পাওয়া যায়নি। সেখানে ২০ জন রোগীর চিকিৎসার অনুমোদন থাকলেও ২৮ জন রোগী পাওয়া গেছে। যেভাবে নিরাময় কেন্দ্র পরিচালনা করার কথা, চিকিৎসা দেওয়ার কথা, রোগীদের সেবা করার কথা তার ব্যাপক অনিয়ম এখানে পাওয়া যায়। নিরাময় কেন্দ্রে রোগীদেরকে চিকিৎসার নামে শারীরিক নি'র্যাতন, মানসিক নি'র্যাতন ও যৌ'ন হয়রানি করা 'হতো। এখানে চিকিৎসার

নামে র'শির সাহায্যে ঝুলিয়ে শারীরিক নি'র্যাতন করা 'হতো। প্রতিষ্ঠানটির মালিক-কর্মচারিদরর তাৎক্ষণিক ডোপ টেস্টের মাধ্যমে প্রমাণ পাওয়া যায় তারা সকলেই মা'দকাসক্ত। আসলে মা'দকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রের নামে সেখানে মা'দক ব্যবসা পরিচালনা করা 'হতো। এলাকায় মা'দক গ্রহীতারা প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীদের কাছ থেকে মা'দক সংগ্রহ করতেন।

এই নিরাময় কেন্দ্রেই ঢাকাই ছবির অ'ভিনেতাকে অনিক রহমান অ'ভিকে নয় মাস আট'কে রেখে যৌ'ন নি'র্যাতন করার অ'ভিযোগ উঠেছে। একটি মা'দকাসক্ত পুনর্বাসন কেন্দ্রে তাকে আট'কে রেখে ওই প্রতিষ্ঠানটির মালিক তাকে নি'র্যাতন করে বলে জানা গেছে। বি'ষয়টি নিয়ে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির পক্ষ থেকে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন (র‍্যাব')-এর কাছে লিখিত অ'ভিযোগ জানালেই র‍্যাব' গতকাল ম'ঙ্গলবার

অ'ভিযান চালায়। বি'ষয়টি গো'পন সূত্রের ভিত্তিতে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির অ'ভিযোগের প্রেক্ষিতে র‍্যাব' অ'ভিযান চালিয়ে সেখানে চিত্রনায়ক অ'ভিসহ আর ২০ জন উ'দ্ধার করা হয়েছে। সেখানে জানানো হয়েছে সেই প্রতিষ্ঠানের মালিক পক্ষ অ'ভিযান পরিচালনার সময় মা'দকাসক্ত অবস্থায় ছিলেন!’

তবে র‍্যাব' বলছে, অ'ভি মা'দকাসক্ত হয়ে পড়লে তাঁকে ওই মা'দক নিরাময় কেন্দ্রে ভর্তি করানো হয়। র‍্যাব' কর্মকর্তা মঈন বি'ষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘আমর'া ২০ জনকে উ'দ্ধার করেছি। চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির অ'ভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে একজনকে উ'দ্ধার করা হয়েছে। তাঁকেও মেডিক্যাল টেস্টের জন্য পাঠানো হয়েছে। তাঁকে এখানে বিভিন্নভাবে নি'র্যাতন করা 'হতো, সে এখান থেকে বের 'হতে চাইতো তাঁকে বের

'হতে দিতো না। কিসের জন্য আট'কে রাখা হয়েছিল, আমর'া সেই বি'ষয়টিও দেখছি।’ উল্লেখ্য, চিত্রনায়ক অনিক রহমান অ'ভি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাওয়া অ'ভিনেত্রী পপির স'ঙ্গে অ'ভিনয় করেছেন সাহসী যো'দ্ধা চলচ্চিত্রে, এছাড়াও চটপটি ভালোবাসা, দুষ্টু ছেলে, ভালোবাসা ডটকম সহ একাধিক চলচ্চিত্র অ'ভিনয় করেছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
News Bulletin © All rights reserved 2021
Develper By ITSadik.Xyz