1. [email protected] : admi :
  2. [email protected] : admin admin : admin admin
  3. [email protected] : atayur :
  4. [email protected] : Toufiq Hassan : Toufiq Hassan
  5. [email protected] : News Reporter :
যে গ্রামে বউসহ সবকিছু ভাড়ায় পাওয়া যায়
সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১২:১৪ অপরাহ্ন

যে গ্রামে বউসহ সবকিছু ভাড়ায় পাওয়া যায়

Desk Report
  • Update Time : শনিবার, ২৬ মার্চ, ২০২২
  • ২৫২ Time View

বউ প্রয়োজন? ভাড়ায় পাবেন। শুধু বউ কেনো, ছোটছোট শিশু চান? হাঁস-মুরগী কিংবা গরু-ছাগল? তার মিলবে এ গ্রামে।

প্রয়োজন অনুসারে কখনো ঘণ্টা ভিত্তিক, আবার কখনো সারাদিনের জন্য ভাড়া নিতে পারবেন। গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ভাদুন ও তার আশপাশের কয়েকটি গ্রামে আপনি নাটক বা সিনেমা'র শুটিংয়ের জন‌্য সবকিছুই ভাড়ায় পেয়ে যাব'েন।  গাজীপুর জে'লা শহর থেকে ৭ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত ভাদুন গ্রাম। এই গ্রামে ৯০-এর দশক থেকে শুরু হয়েছে নাটক-সিনেমা'র শুটিং কার্যক্রম।

এ গ্রামটিকে বলা হয়ে থাকে চলচ্চিত্র শিল্পীদের আবাসভূমি।

এ গ্রামের রাস্তা দিয়ে হাঁটতে হাঁটতেই আপনার স'ঙ্গে হয়তো দেখা হয়ে যাব'ে কোন এক অ'ভিনেতা বা অ'ভিনেত্রীর। প্রতিদিন শুটিং থাকেই এ গ্রামে। ভাদুন গ্রামে রয়েছে মেঘলা, আকাশ ভিলা, ঐশী সুটিং, বিলভিলা, হাসনাহে'না, শাহিনের বাড়ি, আপন ভূবন, কৃষ্ণচূড়াসহ অজস্র শুটিং স্পট।  এছাড়াও অ'ভিনেতা সালাউদ্দিন লাভলু, মোশারফ করিম, পপিসহ অনেক শিল্পীর নিজস্ব শুটিং স্পট রয়েছে এখানে। নাটক বা সিনেমা'র

শুটিংয়ের প্রয়োজনে যা কিছু প্রয়োজন, সবকিছুই ভাড়ায় পাওয়া যায় এ গ্রামে। গ্রামবাসী, শুটিং স্পটের মালিক ও পরিচালকরা জানান, শুটিংয়ের প্রয়োজনে ঘণ্টাভিত্তিক কিংবা সারাদিনের জন্য বউ, শিশু বাচ্চা, নাপিত, কামা'র, গরু-ছাগল, হাঁস-মুরগী, ঝাড়ু, দাসহ সবকিছুই ভাড়ায় পাওয়া যায় এখানে।

ভাদুন গ্রামের বাসিন্দা অনিস বলেন, ‘আমা'দের ভাদুন, পূবাইলসহ আশপাশের গ্রামে কয়েকশ’ শুটিং স্পট ও রিসোর্ট রয়েছে। শুটিংয়ের প্রয়োজনে সবকিছুই সরবরাহ করতে পারে গ্রামবাসী। আগে ফ্রি-তে দিলেও এখন এসব যোগান দিতে টাকা নেওয়া হয়।’

মেঘলা শুটিং স্পটের মালিক রুবেল সরকার বলেন, ‘আমা'দের গ্রামের মানুষের জীবিকার প্রধান মাধ্যম এখন শুটিংয়ে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র যোগন দেওয়া। এর মাধ্যমেই জীবিকা নির্বাহ হয়ে থাকে। নাটকের প্রয়োজনে গ্রামীণ বউ চরিত্র প্রয়োজন? ৫০০ টাকা দিলেই একটা বউ পাওয়া সম্ভব। তবে দুঃখের বি'ষয় হলো আমা'দের গ্রামের জমিগু'লো বিভিন্ন পরিচালক ও অ'ভিনেতারা কিনে নিচ্ছেন। যা আমা'দের ভবি'ষ্যতের জন্য চিন্তার বি'ষয়।’

অ'ভিনেতা আব্দুল হান্নান শেলী বলেন, ‘পূবাইল ও ভাদুন গ্রামের মানুষের কাছে আমর'া কৃতজ্ঞ। তারা যথেষ্ঠ আন্তরিক। বিভিন্ন সময়ে তারা আমা'দের নানা ধরনের সহযোগীতা করেন। মাঝেমধ্যে একটু আধটু ভুল-ত্রুটি হয় তাদের, আমা'দেরও হয়। প্রকৃত পক্ষে এ এলাকার মানুষ বি'ষয়টিকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন। সমস্যা হলো- নাটকের অ'ভিনয়ের জন্য আমর'া আসি। তবে অনেকে বেড়োতে এসে আপ'ত্তিকর পরিস্থিতি তৈরি করে। যেটা কোনোভাবেই কাম্য নয়।’

জনপ্রিয় অ'ভিনেতা সিদ্দিকুর রহমান রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘‘ভাদুন আমা'দের নিজেদেরই গ্রাম। এখানকার মানুষও মনে করেন আমা'দের বাড়ি এখানেই। কারণ, প্রতিদিনই তারা আমা'দের এখানে দেখেন। তবে এই গ্রাম আগের মতো নাই। অনেকটা শহরের ফরমেট হয়ে গেছে। এই গ্রাম এখন ১০০% কমা'র্শিয়াল হয়ে গেছে। সামান‌্য একটা ঝাড়ুর দাম হয়তো ২০০ টাকা। ৪ ঘণ্টার জন্য সেই ঝাড়ু ভাড়া নিতে আপনার খরচ হবে ১৫০ টাকা।

‘আমি যখন ১৯৯৮ সালে ভাদুনে প্রথমবার অ'ভিনয় করতে আসি। তখন এই গ্রামের বাসেদ ভাই শুটিং শেষে আমড়া, জাম্বুরা, কামর'াঙা এগু'লো দিয়ে দিতেন। কত আন্তরিক ছিলেন! আমর'া শিল্পীরা সেই আগের ভাদুন দেখতে চাই।”

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
News Bulletin © All rights reserved 2021
Develper By ITSadik.Xyz