1. [email protected] : admi :
  2. [email protected] : admin admin : admin admin
  3. [email protected] : atayur :
  4. [email protected] : Toufiq Hassan : Toufiq Hassan
  5. [email protected] : News Reporter :
এমপি দুর্জয় ‘পাপিয়াপাড়ায়’ যেতেন হরহামেশাই
বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২, ০৬:৪৬ অপরাহ্ন

এমপি দুর্জয় ‘পাপিয়াপাড়ায়’ যেতেন হরহামেশাই

Desk Report
  • Update Time : সোমবার, ২৯ জুন, ২০২০
  • ১১২ Time View

সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে মানিকগঞ্জ-১ আসনের এই এমপি নাইমুর রহমান দুর্জয় ও তার ঘনিষ্ঠজনদের নানান অনিয়ম, দু’র্নীতি, স্বজনপ্রীতি, দখলবাজি, চাঁদাবাজি, বখরাবাজি নিয়ে প্রকাশিত খবরা-খবরই এখন আলোচনা-সমালোচনার শীর্ষে।

দুর্জয়ের নাম আসে আ’লোচিত ‘পাপিয়াকা’ণ্ডেও’। বি'ষয়গু'লো এখন বেশ আ’লোচিত হচ্ছে মানিকগঞ্জেও। আর এসব বি'ষয়ে সরকারকে পড়তে হচ্ছে বিব্রতকর অবস্থায়।

অ’ভিযোগ আছে সংসদ সদস্য হওয়ার পর থেকেই বাড়তি প্রভাবকে কাজে লাগিয়ে দুই হাতে অর্থ উপার্জন করতে শুরু করেন নাঈমুর রহমান দুর্জয়। দুর্জয়ের ঘনিষ্ঠজনদের ‘ভাগ’ না দিলে মানিকগঞ্জ ও এর আশেপাশের অঞ্চলে কোন কাজ করতে পারেন না সরকারি প্রকল্পের ঠিকাদারেরা।

অ’ভিযোগ আছে, জে’লার শি’বালয়ের আলোকদিয়ার চরে সোলার বিদ্যুৎ প্ল্যান্টের কাজ থেমে থাকার নেপথ্যের ‘কারিগর’ খোদ দুর্জয়। ই-টেন্ডারের মাধ্যমে কার্যাদেশ পেলেও স্থানীয় দুর্জয় ম’দদপুষ্টদের দিতে হয় কাজের ভাগ। আর নয়তো প্রকল্প সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন পণ্য চড়া দামে কিনতে হয় ‘দুর্জয় বাহিনীর’ কাছ থেকে। উল্লেখিত প্ল্যান্টের মাটি ভরাটের কাজে প্রচলিত বাজার দরের চেয়ে কয়েকগু'ণ বেশি মূল্য দাবি করা হয় ঠিকাদারের কাছে। লাভের বদলে লোকসানই হয়ে যাব'ে, তাই উচ্চ মূল্যে মাটি ভরাটের কাজ বন্ধ করতে হয় ঠিকাদারকে।

আরও অ’ভিযোগ আছে, বিআইডব্লিউটিএর বিশাল টার্মিনাল দখল করে দীর্ঘদিন ধরে বালুর ব্যবসা চলছে এমপি দুর্জয়ের নামেই। আরিচা-কাজিরহাট নৌ-রুটে অ’বৈধভাবে স্পিডবোটের ব্যবসাটিও তার দখলেই। করো’না পরিস্থিতিতে লকডাউনে ঘাটের দখল নেয় দুর্জয় বাহিনীর সদস্যরা। মাঝিদের ঘাট থেকে সরিয়ে দিয়ে অমানবিকভাবে নিজেরা অধিক ভাড়ায় যাত্রী পারাপার শুরু করে। দুর্জয়ের এই অ’পকর্মে পরিবারের সদস্যদেরও জ’ড়িতে থাকার অ’ভিযোগ রয়েছে।

চাচা জে’লা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তায়েবুর রহমান টিপুর অ’ত্যাচারে শি’বালয় এলাকায় কেউ জমি কিনতে পারছে না। কোনো শিল্পপতি জমি কিনতে গেলেই তিনি চাঁদা দাবি করেন বলেও অ’ভিযোগ রয়েছে।

বছরের শুরুতেই অন্যতম আ’লোচিত ঘটনা মক্ষীরাণী পাপিয়াকে নিয়ে। পাঁচ তারকা হোটেলগু'লোতে পাপিয়ার দরবারে নিয়মিত যারা হাজিরা দিতেন তাদের মধ্যে নাঈমুর রহমান দুর্জয় আছেন বলেও অ’ভিযোগ ওঠে। পাপিয়ার স'ঙ্গে তার ছবিও পট্রকাশ পায়। অ’ভিযোগ আছে, এমপি নির্বাচিত হওয়ার কিছুদিনের মধ্যেই ‘লালে লাল’ হওয়া দুর্জয় পাপিয়াপাড়ায় যেতেন হরহা'মেশাই।

দশম ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে দুই দফা নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে আয়ের বিস্তারিত তুলে ধরে হলফনামা দেন নাঈমুর রহমান দুর্জয়। প্রথম দফা এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর পাঁচ বছরের ব্যবধানে দ্বিতীয় দফায় নির্বাচনের আগে যে হলফনামা তিনি দিয়েছেন, তাতে অর্থ-সম্পদ বৃ'দ্ধির প্রমাণ স্পষ্ট।

২০১৪ সালে জমা দেওয়া হলফনামা অনুযায়ী, সেসময় তার বাৎসরিক আয় ছিল পাঁচ লাখ ৭০ হাজার টাকা। এর ঠিক পাঁচ বছর পরেই জমা দেওয়া হলফনামা অনুযায়ী, দুর্জয় তার বাৎসরিক আয় দেখান ৪৩ লাখ ৭৫ হাজার ২০০ টাকা। অর্থ্যাৎ এই সময়ে তার বাৎসরিক আয় বৃ'দ্ধি পায় প্রায় ৮ গু'ণ।

দুইটি গাড়ির মালিক থেকে হয়েছেন তিনটি গাড়ির মালিক। এরমধ্যে অন্তত একটি অর্ধকোটি টাকা মূল্যের বিলাসবহুল ল্যান্ড ক্রুজার। প্রথম দফা এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর বনেছেন একটি পাওয়ার প্লান্টের পরিচালকও।

অ’ভিযোগ আছে, শাক দিয়ে মাছ ঢাকতে নিজের নামে তো বটেই নামে-বেনামে এবং স্ত্রী’র নামে সম্পদের পাহাড় গড়েছেন নাঈমুর রহমান দুর্জয়। মালয়েশিয়াতে করেছেন সেকেন্ড হোম।

তবে এসব অ’ভিযোগ অস্বীকার করেছেন নাইমুর রহমান দুর্জয়। জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমা’র আয়ের উৎস তো এনবিআর (জাতীয় রাজস্ব বোর্ড) দেখবে। এনবিআর দেখুক আয়ের উৎস, আয়ের টাকা কই গেল? আর মালয়েশিয়ায় সেকেন্ড হোম? সূত্র কী’ বলেন?

পাপিয়া ইস্যুতে দুর্জয় বলেন, যারা বলে (আমা’র নাম) তাদেরকেই জিজ্ঞেস করেন। পাপিয়া ইস্যুতে তো অনেকেরই নাম আসছে। সেগু'লো নিয়ে ত’দন্তের পর্যায়ে আছে। পাপিয়া ইস্যুতে যদি কিছু বের হয় তখন দেখা যাব'ে। বের হোক।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
News Bulletin © All rights reserved 2021
Develper By ITSadik.Xyz