1. [email protected] : admi :
  2. [email protected] : admin admin : admin admin
  3. [email protected] : atayur :
  4. [email protected] : Author :
  5. [email protected] : Toufiq Hassan : Toufiq Hassan
  6. [email protected] : News Reporter :
চাচ্চু এসব কি করছো? আমি তো তোমার মেয়ের মতো প্লিজ ছাড়ো…
রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৯:৩৪ অপরাহ্ন

চাচ্চু এসব কি করছো? আমি তো তোমার মেয়ের মতো প্লিজ ছাড়ো…

Desk Report
  • Update Time : শুক্রবার, ৩ জুলাই, ২০২০
  • ৩১৩ Time View

চাচ্চু এসব কি করছো- আমা'র নাম সুমনা (ছদ্দনাম)। আমা'র বয়স যখন মাত্র সাত বছর তখন আমা'র বাবা-মা'র মধ্যে বিভিন্ন ঝামেলা বাঁধে এবং তারা দুজনেই ডিভোর্স প্রা'প্ত হয়ে যান। বাবার সংসারে আসে নতুন মা। এরপর শুরু হয় আমা'র কষ্টের দিন অতিবাহিত করার পালা।বাড়ির সকল কাজকর্ম মা আমাকে দিয়ে করাতো। স্কুলে যেতে চাইলে আমাকে অনেক শারিরীক নি'র্যাতন করত। বাবাকে বার বার বলেও কোন লাভ 'হতো না। বরং বাবাকে ছেড়ে চলে যাওয়ার হু’মকি দিত মা। তাই বাবাও কিছু বলত না।চার বছর এভাবে অতিবাহিত হওয়ার পরে আমা'র বয়স যখন ১১ বছর, তখন আমা'র বাবা একটি দূরারোগ্য ব্যধিতে আ'ক্রা'ন্ত হয়ে মা'রা যান। আমা'র নতুন মা আমা'র বাবার সংসার ছেড়ে চলে যান। আমা'র চাচ্চু আমা'র দায়ভার গ্রহন করার দায়িত্ব নেন।চাচ্চুর সংসারে প্রথমত আমা'র ভালোই লাগলো। তারা আমাকে তাদের বাড়ির কাজের মেয়ের মতো রাখলেও খুব কম ভালোবাসতো না। কারনটা খুব সহজ। বাড়ির সমস্ত কাজ যদি কেউ বিনা বেতনে করে দেয় শুধু খাবারের বিনিময়ে, তাহলে তো ভালোবাসাটা স্বাভাবিক।

এভাবে তিন বছর পার হলে আমি শারীরিকভাবে একটু লম্বাটে ও যৌ'বনে পা দিই। আমা'র চাচী একটি স্কুলে পড়াতো। আর চাচ্চুর একটি মোদি খানার দোকান ছিল। ফলে সারাদিন আমি একা একাই বাড়িতে থাকতাম। কখন যে আমা'র চাচ্চুর খারাপ নজরের খপ্পরে আমি পড়ে গেছি তা বুঝিনি।আমি মাঝে মধ্যেই চাচ্চুর নজর লক্ষ্য করতাম আমা'র বুকের দিকে। আমি ভয়ে কিছু বলতাম না। এরই মধ্যে একদিন চাচী স্কুলে চলে গেলে চাচ্চু সকাল দশটার দিকে বাসায় আসেন। আমি তখন সকালের খাবার খাচ্ছিলাম।এরপর চাচ্চু বলল খাওয়া শেষ করে রুমে এসো? আমি একটু ভয় পেলেও তার হুকুম তো আর অমান্য করার সাহস আমা'র ছিল না। এরপর দ্রুত খাওয়া শেষ করে রুমে গেলাম। চাচ্চু বলল আমা'র কাছে এসো।আজ তোমা'র সাথে কিছু গু'রুত্বপূর্ণ কথা বলব। আমি বললাম কি কথা? এই বলে তার কাছে গিয়ে বসলাম। তিনি বললেন তোমা'র কত সমস্যা? আমি না থাকলে যে তোমা'র জীবনে কি 'হতো? এই কথাগু'লো বলছিল আর আমা'র পিঠে, ঘাড়ে, গালে ও গলায় একটু একটু করে হাত দিচ্ছিল।

আমি খুব বির'ক্তিবোধ করছিলাম। এরপর আমি উঠতে গেলে তিনি আমা'র হাত ধরে সজোড়ে টেনে আমাকে খাটে বসালেন। আমি শুধু চাচ্চুকে বলছিলাম যে, আমি আপনার মেয়ের মতো। চাচ্চু তুমি এসব কি করছো? তিনি আমা'র স্তনে হাত দিচ্ছিলেন।আমি চেষ্টা করছিলাম ছাড়াতে কিন্তু পারছিলাম না। এক পর্যায়ে আমা'র সাথে সকল শারীরিক কাজ সম্পূর্ণ করল। আমা'র খুব কষ্ট হচ্ছিল। কিন্তু মানুষ রুপের এই জানোয়ার কার কথা শোনে। আমা'র কষ্ট দেখার মতো সময় তার নেই।তার কাজ শেষ হলে তিনি দোকানে চলে যান। আর যাওয়ার আগে অনেক ভয়ভীতি দেখায়। আমি শুধু চুপ করে ডুকড়ে কেঁদে চলেছি। সেদিন আমি কোন কাজ করতে পারলাম না। রুমে গিয়ে শুয়ে পরলাম। বিকেলে চাচী বাসায় এসে কাজ হয়নি দেখে আমাকে অনেক গালাগালি করল। চাচ্চু অবশ্য আমাকে কিছুটা সেফ করল।এরপর থেকে চাচী স্কুলে চলে গেলেই চাচ্চু বাড়িতে আসে। আর আমা'র অনিচ্ছা থাকা সত্ত্বেও এসব তার সাথে করতে 'হতো। এভাবে চলে চার বছর। আমি প্রা'প্ত বয়স্ক 'হতে চললেও আমাকে বিয়ে দিতে তাদের কোন আগ্রহ ছিল না।আমা'র চাচী তো অর্থ খরচের ভয়ে এসব কথা কখনও মুখেই তুলতোনা। আর চাচ্চু কেন আমা'র বিয়ে নিয়ে ভাবতো না সেটা হয়তো আপনারা সকলেই বুঝতে পারছেন।আমি এখন অনেক বড়। সবকিছু বুঝতে শিখেছি। নিজেকে এসব কাজ থেকে বাঁচাতে আমি একটি স্বপ্ন দেখি। এরই মধ্যে একটি ছেলের সাথে আমা'র পরিচয় হয়। সে রোজ আমা'দের বাসার সামনে দিয়ে চলাফেরা করত এবং আমা'র দিকে তাকিয়ে থাকত। নাম তার শুভ।সে দিনমজুরের কাজ করত। তাতে কি! আমা'র যে তাকেই ভালো লেগে গেছে। চাচার সংসারে এসব নি'র্যাতন থেকে বাঁচতে এর চেয়ে বেশী পছন্দ থাকা হয়তো আমা'র পক্ষে উচিত না। একদিন শুভর সাথে রাতে আমি পালিয়ে চলে গেলাম অনেক দূরে। আমর'া বিয়ে করে নিলাম।

একটি ছোট্ট বাসা ভাড়া নিলাম। সে দিনমজুরের কাজে যোগ দিল। খুব ভালো চলছিল আমা'দের সংসার। দুই মাস পর আমা'র চাচ্চু খবর পেয়েছে আমি কোথায় আছি। আমা'র স্বামীর মোবাইলে কল দিয়েছে। চাচ্চু নাকি বলেছে, তারা আমা'দের মেনে নেবে। আমা'র স্বামী বাড়িতে ফিরে যেতে চাইছিল। কিন্তু আমি বললাম না।সেখানে আর কখনই আমর'া ফিরে যাব' না। কারনটা আপনারা বুঝতেই পারছেন। কয়েকদিন পর আমা'র চাচ্চু আমা'দের নিতে আসে। আমা'র স্বামীও চাচ্চুর কথায় আমাকে বার বার রাজি করানোর চেষ্টা করছে। আমা'র স্বামী বলল আমি আজ কাজে যাচ্ছি। কাজ থেকে ফিরে আমর'া চাচ্চুর সাথে ফিরে যাব'। আমি তাকে আজ কাজে যেতে বারণ করলাম।আমা'র স্বামী কাজে গেলে আমি খাবার প্রস্তুত করছিলাম। চাচ্চু তখন রুমে। আমি ভয়ে রুমে যাচ্ছিলাম না। হটাৎ চাচ্চু আমা'র রান্নাঘরে প্রবেশ করে বলল রুমে আসতে, আমা'র সাথে নাকি কথা আছে।আমি বললাম এখানেই বলেন।তিনি বললেন, এখানে না রুমে এসো? আমি বললাম রুমে আমা'র স্বামী না আসা পর্যন্ত আমি ঢুকব না। তিনি তখনই আমা'র কাছে এসে আমাকে জোর করে জরিয়ে ধরে আমা'র শরীরের সব জায়গায় হাত দেওয়ার চেষ্টা করছিল।

আমি বলছিলাম চাচ্চু এখন আমা'র বিয়ে হয়ে গেছে। আপনি আমা'র সাথে আর এসব করেননা। দয়া করে আমা'র সংসার ভাঙবেন না। আমি জোরে জোরে কথা বলাতে এবং এটা নতুন জায়গা হওয়ায় তিনি আমাকে ছেড়ে রুমে চলে গেলেন।এরপর আমা'র একটু ভয় কমলো। তিনি রুমে গিয়ে তার ব্যাগ নিয়ে বললেন আমি চলে যাচ্ছি। তবে এরপর যখন আসব তোকে নিয়েই যাব'। আমি কোন কথা বললাম না। চাচ্চু চলে গেলেন।আমা'র স্বামী সন্ধ্যায় বাড়ি ফিরে আমাকে বলল তোমা'র চাচ্চু কোথায়? আমি বললাম তিনি চলে গেছেন। আমি এখন কি করব। কিছুই ভেবে পাচ্ছি না। কাউকে কিছু জানাতেও পারছিন'া। ভাইয়া আজ আমাকে এমন পরামর'্শ দেবেন যাতে আমি এই কঠিন বিপদের হাত থেকে রক্ষা পেতে পারি।
পরামর'্শ–
আপু আপনি পরবর্তীতে যে কাজটি করেছেন তা সঠিক ছিল। তবে আপনার স্বামীর সাথে যদি আরো আগে পরিচয় ঘটত তাহলে হয়তো আপনার জীবনে এমনটা ঘটত না। আপনি আপনার স্বামীকে বুঝান যে, আমা'র বাড়িতে ফিরে গেলে আমাকে তোমা'র কাছ থেকে আলাদা করে নিবে আমা'র চাচ্চু।আর আমাকে অন্য কোন জায়গায় বিয়ে দেবে। এমন কিছু মিথ্যে কথা বলেন। কারন নিজের সংসার বাঁচাতে এবং এমন একটি বিপদের হাত থেকে নিজেকে রক্ষা করতে এমন মিথ্যা কোন বি'ষয় নয়। আর এ ব্যাপারে তো আপনার স্বামীকে কিছু জানানো সম্ভব নয়। আশা করি আপনার সমস্যা খুব অচিরেই সমাধান হয়ে যাব'ে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
News Bulletin © All rights reserved 2021
Develper By ITSadik.Xyz