1. [email protected] : admi :
  2. [email protected] : admin admin : admin admin
  3. [email protected] : atayur :
  4. [email protected] : Author :
  5. [email protected] : Toufiq Hassan : Toufiq Hassan
  6. [email protected] : News Reporter :
ঈদের আগেই গণপরিবহন চালু!
রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৪:২০ অপরাহ্ন

ঈদের আগেই গণপরিবহন চালু!

Desk Report
  • Update Time : রবিবার, ১০ মে, ২০২০
  • ১২৩৪ Time View

স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদুল ফিতরের আগেই সীমিত আকারে গণপরিবহন চালু করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছে জাতীয় সড়ক পরিবহন মোটর শ্রমিক ফেডারেশন। শুক্রবার গাবতলীতে সংবাদ সম্মেলন করে এ অনুরোধ জানিয়েছেন সংগঠনটির সভাপতি মোস্তাকুর রহমান মোস্তাক। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, করো'নাকালীন দীর্ঘ সময় ধরে গণপরিবহন বন্ধ রয়েছে। এতে শ্রমিকরা মানবেতর জীবনযাপন করছে। এমন অবস্থায় লাখ লাখ পরিবহন শ্রমিক বেকার হয়ে পড়েছে। এমন অবস্থায় এসব শ্রমিকদের কথা বিবেচনা করে ঈদের আগেই সীমিত আকারে গণপরিবহন চালুর অনুরোধ জানাচ্ছি।

শ্রমিকদের জন্য প্রণোদনা ও ত্রাণ সঠিকভাবে বণ্টনের দাবি জানিয়ে মোস্তাকুর রহমান বলেন, এই সংকটকালীন সরকার কর্তৃক শ্রমিকদের জন্য প্রণোদনা এবং ত্রাণ যথাযথ শ্রমিকদের মাঝে যেন দ্রুত সুষ্ঠুভাবে বণ্টন করা হয়। একই স'ঙ্গে শ্রমিক কল্যাণ তহবিলের টাকা যারা আ'ত্মসাৎ করেছে তাদেরও বিচারের দাবি জানাচ্ছি। এর আগে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী মো. ফরহাদ হোসেন একটি গণমাধ্যমে বলেছিলেন, জীবিকার তাগিদে একটু একটু করে সবই চালু করতে হবে। তবে তা স্বাস্থ্যবিধি মেনে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহন কিভাবে চলবে- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ৪০ সিটের গাড়ি ২০ সিট পরিপূর্ণ হবে।

অর্থাৎ এক আসন ফাঁ'কা রেখে মানুষকে বসাতে হবে। গাড়িতে উঠার আগে স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধুয়ে দিতে হবে। জীবাণুনাশক স্প্রে করতে হবে। এভাবে নিয়ম মেনে বাস চালাতে খুব একটা আগ্রহী নয় মালিকপক্ষ। এ অবস্থায় কি হবে- জানতে চাইলে তিনি বলেন, জীবন যেমন জরুরি তেমনি জীবিকাও দরকার। আর এ দুটোকে সমন্বয় করতে গেলে এর বিকল্প কিছু নেই। ঈদের সময় সরকারি কর্মজীবীদের স্টেশনে থাকতে বলার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, দেশে বর্তমানে জরুরি পরিস্থিতি বিরাজ করছে। আর জরুরি পরিস্থিতিতে সরকারি কর্মজীবীদের দায়দায়িত্ব বেশি।

যে কোনো সময় যে কোনো দায়িত্ব পড়তে পারে। এই দায়িত্ব পালনের জন্য সরকারি কর্মজীবীদের স্টেশন ছাড়তে না করা হয়েছে। ঈদে চারদিন গণপরিবহন বন্ধ থাকার কারণ জানিয়ে তিনি বলেন, আমা'দের দেশে ঈদ উৎসবে সবাই গ্রামের বাড়ি যেতে চান। এর ফলে বাসে, বাসের ছাদে, ট্রেনে, ট্রেনের ছাদে, নৌকায়, লঞ্চে যে যেভাবে পারেন সবাই গ্রামের বাড়িতে ছুটেন। কিন্তু এবার করো'নায় দেশের পরিস্থিতি ভালো না, মানুষকে বলা হচ্ছে ঘরে থাকতে। তবুও মানুষ ঘরে থাকছেন না। একপর্যায়ে জীবিকার তাগিদে ভিড় কম হয় এমন কিছু প্রতিষ্ঠান খুলে দিতে হয়েছে। কিন্তু ঈদের সময় গণপরিবহন চালু থাকলে মানুষের ভিড় বেশি হবে।

এতে সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে যেতে পারে। মূলত সংক্রমণের ঝুঁকির কারণেই ঈদের সময় চারদিন গণপরিবহন বন্ধ থাকবে। এদিকে ব্যবসায়ী, সাধারণ ক্রেতা, পরিবহন খাতের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, সীমিত আকারে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহন চালুর সি'দ্ধান্ত নেয়া উচিত। এজন্য তাদের প্রস্ততিও রয়েছে। তারা বলছেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত আকারে গণপরিবহন চালানো যায়। এ অবস্থায় গত সোমবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে জারি করা প্রজ্ঞাপনে ঈদুল ফিতরে দূরপাল্লার যানবাহন বন্ধ থাকবে বলে জানানো হয়।

এছাড়া সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় থেকে একই দিন সংবাদ বিজ্ঞ'প্তি দিয়ে জানানো হয়েছে, সাধারণ ছুটির স'ঙ্গে সংগতি রেখে গণপরিবহন বন্ধ থাকবে আগামী ১৬ মে পর্যন্ত। রাজধানীসহ সারাদেশে গত ২৬ মা'র্চ থেকে সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটি চলছে। এই ছুটি ১৬ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। সাধারণ ছুটিতে সারাদেশ কার্যত ‘লকডাউন’ অবস্থায় থাকার কথা। প্রথম'দিকে ‘সব বন্ধ’ রেখে কঠোরভাবেই ‘ঘরব'ন্দি’ অবস্থা চলছিল।তবে এক মাসেরও বেশি সময় ধরে চলা ‘অবরু'দ্ধ’ পরিস্থিতি কয়েক দিন ধরে ভেঙে পড়েছে। বিশেষ করে দিনমজুর, গৃহকর্মীসহ রোজ কাজের ওপর নির্ভশীল মানুষ রাস্তায় বেরিয়ে পড়ছে। তৈরি পোশাক কারখানা খুলে দেয়া হয়েছে।

তবে দূরপাল্লার বাস বন্ধ থাকায় পোশাককর্মীরা আইন পরিপন্থি হলেও পণ্যবাহী গাড়িতে কর্ম এলাকায় ফিরতে বাধ্য হচ্ছেন। রাতের আঁধারে সাধারণ যাত্রীদের একটি অংশ এক জে'লা থেকে অন্য জে'লায় যাচ্ছেন পণ্যবাহী গাড়িতে। সে কারণে সীমিত আকারে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহন চালুর পক্ষে পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
News Bulletin © All rights reserved 2021
Develper By ITSadik.Xyz